প্রত্যেকেই চায় সমাজে নিজের একটা শক্ত অবস্থান গড়তে। আর এই অবস্থান গড়ে তোলায় পথে প্রতিযোগিতা অনেক বেশি। আপনিও কি ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকায় বা কম টাকায় লাভজনক বিজনেস আইডিয়া খুঁজছেন?  শতশত তরুণ তরুণী এই প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়ে হতাশায় ভুগছে। তবে থেমে নেই কেউ। নিজের একটা পরিচয় গড়ে তোলার অন্যতম মাধ্যম হিসেবে আজকাল অনেকেই ঝুঁকে পড়েছে নিজস্ব ব্যবসার দিকে।

বিজনেস শুরু করে নিজেই হয়ে উঠছে নিজের বস। স্বাধীনভাবে নিজের কাজ উপভোগের জন্য ব্যবসাকেই বেছে নিচ্ছে সবাই। কিন্তু অনেকই অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে নিজের বিজনেস দাঁড় করানোর স্বপ্নকে শুধু মনের মধ্যে পুষে রেখেছেন। বাস্তবে রূপ দিতে পারেন নি।

তবে আপনার আশা পূরনের এখনও বহু পৎ খোলা আছে। আপনি যদি কম টাকায় সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসার স্বপ্ন দেখে থাকেন তাহলে আজকের লেখাটি আপনার জন্য।

১০ টি কম টাকায় লাভজনক বিজনেস আইডিয়া

কম টাকায় বিজনেস শুরু করতে ভয় পাচ্ছেন? ভয়ের কিছু নেই। কারন ব্যবসার শুরু করতে টাকার থেকে বুদ্ধি প্রয়োজন বেশি।

আপনার কম টাকায় লাভজনক ব্যবসার স্বপ্নের কথা যাদের কাছে উপহাস মনে হয় তাদের জবাব দিতে চাইলে নিজের বুদ্ধিকে কাজে লাগান এবং অল্প টাকায় লাভজনক বিজনেস শুরু করতে আমাদের আইডিয়া গুলো ফলো করুন।

তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক ২০২১ এর কম টাকায় সবচেয়ে লাভজনক ১০ টি ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে।

১. অর্গানিক প্রোডাক্টস বিজনেস

বর্তমানে ভেজালে ভরা এই বাজারে প্রত্যেকেই চায় কেমিক্যাল মুক্ত পন্য পেতে। সবাই কমবেশি স্বাস্থ্য সচেতন হচ্ছে।

এসময়ে অর্গানিক প্রডাক্টস এর চাহিদা দিনে দিনে বেড়েই চলছে। ক্ষতিকর কেমিক্যাল মুক্ত খাবারের প্রতি ঝুঁকে পড়ছে সবাই। তাই এই ভেজালের সমারোহে আপনার অর্গানিক প্রডাক্টস এর চাহিদা থাকবে আকাশচুম্বী।

আর এটি এমন একটি ব্যবসা যা আপনি খুব সহজেই এবং কম টাকায় শুরু করতে পারবেন। আপনার ঘরে, ছাদে, সামান্য খোলা জায়গায় কিংবা বারান্দায় এটি শুরু করে দিতে পারবেন।

তাহলে প্রথম দফায় আপনার ব্যবসার জন্য জায়গা নির্বাচনের সময় এবং খরচ দুটোই বেঁচে গেল।

আর বানিজ্যিকভাবেই এই বিজনেস চালানো যাবে খুব কম মূলধন দিয়েই। তাই কম টাকায় সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসার খুঁজে থাকলে আপনি শুরুটা করতে পারেন অর্গানিক প্রডাক্টস এর মাধ্যমে।

আর নতুন উদ্যোক্তারা যতই এই ব্যবসার দিকে ঝুঁকবে সাধারণ মানুষও তত স্বাস্থ্যকর খাবারের গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন হবেন। তাই অল্প পুঁজিতে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা করতে চাইলে শুরুটা করুন অর্গানিক প্রোডাক্টস দিয়ে।

২. নার্সারি ব্যবসা

অল্প টাকায় লাভজনক বিজনেসের আরেকটি সেরা আইডিয়া হচ্ছে নার্সারি ব্যবসা। এই ব্যবসার জন্যও আপনার দরকার হবেনা আলাদা কোনো শপ। অনেক ক্ষেত্রে আলাদা কোনো মূলধনেরও প্রয়োজন নেই।

নার্সারি বিজনেস আইডিয়া

কারন শখের বসে আমরা অনেক সময়ে নিজেদের ঘরে, বারান্দায়, ছাদে বা বাড়ির সামনের খোলা জায়গায় গাছপালা, ফল ও ফুলের চাড়া লাগিয়ে থাকি।

আর এই শখের বসে করা কাজটিই হতে পারে আপনার জন্য একটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া। আর বাগান করতে যারা আনন্দ পান তাদের জন্য এই ব্যবসাটি হবে সবচেয়ে সহজ, লাভজনক ও সেরা ব্যবসা।

অনেক কম টাকায় শুরু করে দিতে পারবেন নার্সারি ব্যবসা৷ তাই গাছপ্রেমীরা আর দেরী না করে শুরু করে দিতে পারেন কম টাকায় সবচেয়ে লাভজনক এই ব্যবসাটি।

৩. ওয়ান টাইম গ্লাস, প্লেট, কাপের বিজনেস

শুনতে অবাক লাগলেও এটা সত্যি যে আজকাল অনেক অনুষ্ঠানে, ছোট বড় সবরকম ইভেন্টে ওয়ান টাইম প্রডাক্টস এর অনেক বেশি চাহিদা৷ তাই নিঃসন্দেহে এটি একটি যুগোপযোগী এবং লাভজনক ব্যবসা।

আর খরচের প্রসঙ্গে আসলে দেখা যাবে এর জন্যও শুরুতে আলাদা দোকানের প্রয়োজন পড়বে না। আপনার ঘরেই একটু জায়গায় শুরু করে দিতে পারবেন এই লাভজনক ব্যবসা।

অনেক ইভেন্ট, পিকনিক, জন্মদিন, বিয়ে, স্কুল,কলেজ, ভার্সিটি ফাংশনে এই ওয়ান টাইম প্রডাক্টস গুলোর প্রচুর ব্যবহার রয়েছে। সহজভাবে বলতে গেলে, ওয়ান টাইম বা একবার ব্যবহারের জন্য এইসব কাগজের থালা বাসনের জুরি নেই।

তাই কম টাকায় সবচেয়ে লাভজনক বিজনেস আইডিয়ার তালিকায় একে রাখার অবশ্যই যুক্তিকতা রয়েছে। তাই আপনার স্বপ্নের পথে এগিয়ে যেতে হলে কোনো ব্যবসাকে ছোট মনে না করে এগিয়ে যান।

৪. মাস্ক এবং স্যানিটাইজার ব্যবসা

বর্তমানে এই করোনা কেড়ে নিয়েছে অনেক মানুষের প্রাণ, অনেকের জীবিকার নির্বাহের উপায়। তবে এর মধ্যেও কিছু মানুষ বুদ্ধিকে পুঁজি করে জয় করেছে এই কঠিন সময়কে।

মাস্ক স্যানিটাইজার ব্যবসা

মাস্ক এবং স্যানিটাইজার বর্তমানে বহুল ব্যবহৃত পন্য। আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী এখন মাস্ক এবং স্যনিটাইজার। তাই মাস্ক ও স্যানিটাইজারের ব্যবসা বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ও সময়োপযোগী বিজনেস।

আবারও একই কথায় আসি, এর জন্য আপনার দরকার হবে না আলাদা দোকান। নিজের ছোট্ট বাসাতেই পাইকারী ও খুচরা বিক্রি শুরু করে দিতে পারেন।

পুঁজি নিয়ে একদমই ভাবতে হবে না। কারন ১০ হাজার টাকারও কমে এই বিজনেস শুরু করতে পারবেন।

করনার মহামারীর এই সময়ে এর থেকে ভাল ও ইউনিক বিজনেস আইডিয়া দ্বিতীয়টি নেই। তাই আপনি যদি কম টাকায় লাভজনক ব্যবসাটি শুরু করতে চান তাহলে এই ব্যবসাটি আপনার জন্য যেমন উপযুক্ত হবে তেমনি অন্যদের জন্য হবে খুবই উপকারী।

৫. ই- কমার্স ব্যবসা

বর্তমানে ই-কমার্স অন্যতম জনপ্রিয় ও স্মার্ট বিজনেস আইডিয়া। এর প্রধান কারন সাধারণ জীবন ধারায় আধুনিকতার ছোঁয়া।

এছাড়াও দিন দিন মানুষের ব্যস্ততাও বাড়ছে প্রচুর। এসময়ে অনেকই অনলাইন শপিং এর দিকে ব্যপক ভাবে ঝুঁকে পড়েছেন। হাতে থাকা মোবাইল বা কম্পিউটার দিয়ে ঘরে বসেই পেয়ে যেতে চান নিজের পছন্দের পন্যটি।

এ ব্যবসাটি অল্প টাকায় লাভজনক বিজনেস আইডিয়ার তালিকায় চলে আসার অন্যতম কারন এর জন্য আপনার কোনো দোকানের প্রয়োজন হবে না।

তাই প্রাথমিক ভাবেই আপনার অনেকটা টাকা বেঁচে গেল। এ ব্যবসায় অন্যতম সুবিধা হচ্ছে আপনি যেকোনো পন্য (এক বা একাধিক) নিয়ে শুরু করে দিতে পারেন আপনার ব্যবসা।

অনলাইনে অনেক কম টাকায় লাভজনক বিজনেস করা সম্ভব। তেমন কিছু ই কমার্স ব্যবসা হল:

  • কাপড়ের ব্যবসা
  • কসমেটিকস
  • ঘড়ি
  • জুয়েলারি
  • হ্যান্ড মেইড প্রডাক্ট
  • আচার
  • হোম মেইড ফুড ইত্যাদি।

৬. মোবাইল ও কম্পিউটার সার্ভিসিং বিজনেস

বর্তমানে আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা সকলের হাতে হাতে মোবাইল। আধুনিক এ যুগে মোবাইল আর কম্পিউটার আমাদের জীবনের অপরিহার্য অংশ হয়ে উঠেছে।

আর মেবাইলে এবং কম্পিউটার নিয়ে হরহামেশাই লোকজন নানা রকম সমস্যায় পড়ে থাকে। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য সার্ভিসের প্রয়োজন পরে। প্রতিনিয়তই দৌড়াতে হয় মোবাইল সার্ভিসিং এর দোকানে।

তাই এই ব্যবসাটি হতে পারে একটি সময়োপযোগী ব্যবসা। যেখানে খুব অল্প জায়গায় ও কম টাকায় আপনি শুরু করতে পারেন আপনার জীবনের প্রথম ব্যবসা।

গ্রামে ব্যবসার আইডিয়াগুলোর মাঝে এটি অনেক লাভজনক বিজনেস আইডিয়া হতে পারে। কারণ গ্রামে এধরনের সার্ভিস এখনো অনেক কম।

তবে এ কাজটির জন্য সবচেয়ে জরুরি হচ্ছে দক্ষতা। ব্যবসা শুরু করলেই হবে না। একে লাভজনক করতে অবশ্যই পর্যাপ্ত দক্ষতা প্রয়োজন। অন্যথায় আপনার ব্যবসা শুরু করার আগেই ধ্বস নেমে আসবে।

তাই আপনার যদি এ বিষয়ে পারদর্শিতা থাকে তাহলে এটি হবে আপনার জন্য অত্যন্ত লাভজনক একটি ব্যবসা। আর পারদর্শিতা না থাকলেও এ আপনি এ বিষয়ে বিশেষ দক্ষতা অর্জনের চেষ্টা করুন।

৭. ব্লগিং বিজনেস

আরেকটি সময়োপযোগী ব্যবসার আইডিয়া হচ্ছে ব্লগিং বিজনেস। ইন্টারনেটে নিজের মত প্রকাশ, বিভিন্ন রকমের তথ্য শেয়ার করা ও বাস্তব জীবন নিয়ে আালাপ আলোচনা করার অন্যতম একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ব্লগিং।

ব্লগিং বিজনেস

বর্তমানে ব্লগিং করে ইনকামের চাহিদা অনেক বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে। যেকোনো পেশা, শ্রেনীর মানুষ, যেকোনো জায়গায় বসে শুরু করতে পারে এই বিজনেস।

দিনে কেবল দুই থেকে তিন ঘন্টা সময় দিয়েই আপনি শুরু খুবই লাভবান হতে পারবেন।

তবে ব্লগিং করা সম্পূর্ণ নির্ভর করে আপনার নিজস্ব আগ্রহ আর দক্ষতার উপর। আপনার ব্লগিং বিষয়ে আগ্রহ থাকলে এখনই দক্ষতা অর্জন করুন এবং নিজস্ব ব্লগিং বিজনেস শুরু করে দিন।

কোনো খরচ ছাড়াই কিংবা মাত্র ৫ হাজার টাকায় একটি সুন্দর ও প্রফেশনাল ব্লগ বানিয়ে নিতে পারেন।

৮. ইউটিউব চ্যানেল বিজনেস

নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে এবং মানসম্মত কন্টেন্ট এর ভিডিও আপলোড করে আয় করতে পারেন মোটা অংকের টাকা। এর জন্য আপনাকে খুলতে হবে একটি ইউটিউব চ্যানেল যেটি সম্পূর্ণ ফ্রী।

তাহলে বুঝতেই পারছেন কম টাকায় ব্যবসা শুরু করতে চাইলে ইউটিউব চ্যানেল নিঃসন্দেহে একটি ভাল আইডিয়া।

তবে মানসম্মত কন্টেন্টের অভাবে আপনার ইউটিউব সাবস্ক্রাইবার বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়না, ফলাফলস্বরূপ আয়ের আশা নিমিষেই ভেস্তে যেতে পারে। এজন্য ইউটিউব বিজনেস শুরু করার আগে আপনাকে অবশ্যই দক্ষ হতে হবে।

পাশাপাশি দিন দিন ভিডিওর মান উন্নত ও সময়োপযোগী করতে হবে যাতে বেশি বেশি ভিউ পাওয়া যায়।

এছাড়াও আপনার ভিডিও গুলোর প্রচারণা অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চালাতে হবে। কারন যত ভিউ হবে তত আয় হবে।

আপনার ভিডিও দেখার দরুন এডস গুলোয় যত ভিউ পরবে সেই হারে আপনার ইনকামও বাড়বে।

তাই কম টাকায় লাভজনক বিজনেস শুরু করতে চাইলে আজই ইউটিউবে একটি চ্যানেল খুলে ফেলুন এবং মানসম্মত কন্টেন্ট এর ভিডিও আপলোড করুন৷

৯. ফেসবুক পেজ বিজনেস

সারাদিন ঠিক কতটা সময় আপনি ফেসবুকে ব্যয় করেন বলতে পারবেন? আপনি কি জানেন ফেসবুক থেকে আয় করার কতগুলো উপায় আছে?

আর নয় ফেসবুকে সময় নষ্ট। ফেসবুকে থাকা প্রতিটি সময় কাজে লাগাতে চাইলে আজই খুলে ফেলুন একটি ফেসবুক পেজ।

এটি হতে পারে যেকোনো বিষয় এর উপরে। সামাজিক অবস্থা, ফানি টপিক, রিয়্যাক্ট ভিডিও কিংবা মজার মজার মিমস শেয়ার করে পেতে পারেন হাজার হাজার লাইক এবং ভিউ ।

আর ফেসবুকে আপলোড করা ভিডিও অবশ্য মানসম্মত হতে হবে। নয়ত খুব অল্প সময়েই ঝরে পরবে আপনার বিজনেস।

ফেসবুক পেজ থেকে আয় করতে চাইলে বেশি বেশি সময়োপযোগী কন্টেন্ট তৈরী করুন। ঘরে বসে, কোনো বিনিয়োগ ছাড়াই ব্যবসা করতে চাইলে এই ব্যবসার জুরি নেই।

১০. অনলাইন কোর্স বিজনেস

আপনার কি কোনো বিষয়ে বিশেষ পারদর্শিতা আছে? যেটি আপনি সবার মধ্যে শেয়ার করতে চান? সবাইকে শেখার সুযোগ করে দিতে চান?

কম টাকায় বিজনেস

তাহলে আপনার এই পারদর্শিতাকেই আপনার জন্য আরেকটি সফল বিজনেস হিসেবে দাড় করিয়ে নিন। করনা মহামারীতে অনলাইন ক্লাস কিংবা কোর্স গুলো অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

সরাসরি কোর্স করার থেকে মানুষ এখন ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস করতে বেশি আগ্রহী। আর আপনাকে এই সুযোগ কেই কাজে লাগাতে হবে এবং আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সে বিষয়ে অনলাইন কোর্স চালু করে দিতে পারেন।

আজকাল বিভিন্ন মাধ্যমে অনলাইনে ঘরে বসে ক্লাস নেওয়ার সুবিধা রয়েছে। তাই আর দেরি না করে শুরু করে দিন আপনার নিজস্ব অনলাইন কোর্স। পরিশেষে এটাই বলতে চাই, ব্যবসা শুরু করতে চাইলে আপনার যতটা না টাকার প্রয়োজন তার চেয়েও বেশি প্রয়োজন বুদ্ধির।

শেষ কথা

কম টাকায় ব্যবসা শুরু করতে আতঙ্কিত হবেন না। আপনার পিছিয়ে পড়ার কারনে হয়ত অনেকেই এগিয়ে যাবে এই প্রতিযোগিতার যুগে।

এজন্য ঘরে বসে নিজের বুদ্ধিকে কাজে লাগিয়ে শুরু করে দিন আপনার স্বপ্নের বিজনেস৷ আশা করি উপরে উল্লেখ করা কম টাকায় সবচেয়ে লাভজনক বিজনেস আইডিয়াগুলো আপনাদের ব্যপক কাজে লাগবে।

সমাজে আপনার নিজের জায়গায় তৈরী করার এই সংগ্রামে কিছুটা হলেও সাথে থাকতে পেরে আমরা আনন্দিত। অনেক শুভ কামনা আপনার ভবিষ্যতের জন্য।


supti

I'm Nusrat Jahan Supti. I'm a professional content writer, freelance designer and web developer. I have a handful experience on these ground. Rather than profession,writing has always been my passion.I'm giving my best to become a renowned and successful author. I'm currently a student of Agriculture. I prefer hard-work and always try to complete my work with 100% honesty. I've already worked with many renowned websites. Spreading knowledge through my writing,is my goal.

0 Comments

মন্তব্য করুন

Avatar placeholder

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!