জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি | জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করার উপায়

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয়

জন্ম নিবন্ধন মূল কপি হারিয়ে ফেলেছেন? চিন্তার কোন কারণ নেই, জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি সেসম্পর্কে জেনে নিয়ে পুণরায় আপনার হারানো জন্ম নিবন্ধন সনদ ফিরে পেতে পারেন।

একজন ব্যক্তির নাগরিকত্বের প্রথম প্রমাণ তার জন্ম নিবন্ধন সনদ। প্রায় সকল গুরুত্বপূর্ণ কাজেই জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রয়োজন হয়। তাই জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি তা জেনে রাখা দরকার।

জন্ম নিবন্ধন সনদ হারিয়ে গেলে তা ফিরে পেতে কিভাবে জন্ম নিবন্ধনের প্রতিলিপির জন্য আবেদন করবেন এবং হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদের অনলাইন কপি ডাউনলোড করার নিয়ম জানা থাকলে আপনার জন্ম সনদ নিয়ে আর কোন চিন্তা থাকবে না।

বিদ্যালয়ে ভর্তি, ভোটার আইডি কার্ড আবেদন, পাসপোর্ট আবেদন, চাকরিতে নিয়োগ সহ ১৯টি ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সনদ আবশ্যক। তাই জন্ম নিবন্ধন সনদ হারিয়ে গেলে আমাদের বেশ সমস্যায় পড়তে হয়, বিশেষ করে যাদের এখনো ভোটার আইডি কার্ড হয়নি। খুবই গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট হওয়া সত্ত্বেও অনেক সময় আমরা জন্ম নিবন্ধন সনদটি হারিয়ে ফেলি।

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে প্রথম করণীয় হলো যত দ্রুত সম্ভব হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ (জন্ম নিবন্ধন প্রতিলিপি) এর জন্য আবেদন করা।

আপনার কাছে হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধনের একটি ফটোকপি থাকলে খুব সহজেই হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার জন্য আবেদন করতে পারবেন। যদি ফটোকপি না থাকে তবে কি করতে হবে সেটাও আজকের আলোচনা থেকে জেনে নিতে পারবেন। তাহলে চলুন জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি সেসম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি

জন্ম নিবন্ধনের প্রিন্ট কপিটি যদি হারিয়ে যায় তবে খুব দ্রুত তা সংগ্রহ করতে হবে নয়তো, পড়তে হতে পারে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতিতে। জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে আপনার করণীয় কি তা দেখে নিন:

১. অনলাইন জন্ম সনদ যাচাই: আপনার জন্ম নিবন্ধনটি যদি হাতে লেখা নিবন্ধন হয় তবে প্রাথমিক পদক্ষেপ হলো, সরকারের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন ওয়েবসাইটে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ ব্যবহার করে জন্ম নিবন্ধনটি অনলাইনে আছে কি না তা একবার চেক করে নেওয়া। যদি না থাকে তবে নতুন করে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে হবে।

২. নিবন্ধক কার্যালয় ভিজিট: যদি নিবন্ধনটি অনলাইনে থাকে তাহলে জন্ম নিবন্ধন পুনঃ মুদ্রণ এর জন্য আপনাকে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা/সিটি কর্পোরেশনে (পূর্বে যেখান থেকে নিবন্ধন করেছিলেন) সেখানে যেতে হবে।

জন্ম নিবন্ধনের অনলাইন যাচাই কপি ডাউনলোড

আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদটি যদি অনলাইন কপি হয়ে থাকে তাহলে, জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হয়ে গেলে জন্ম নিবন্ধন এর নতুন কপি পেতে নিবন্ধন টি পুনঃ মুদ্রণ আবেদন করতে হবে। পূর্বে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনঃ মুদ্রণের জন্য আবেদন করা যেত। সম্প্রতি নতুন নিয়মের ফলে এই আবেদন ব্যক্তি পর্যায়ে করা যাবে না। বরং নিবন্ধক অফিস থেকে করতে হবে।

Related:  স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম | স্মার্ট আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

সেক্ষেত্রে সরাসরি নিকটস্থ ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা পৌরসভায় আপনার বাবা ও মায়ের জন্ম নিবন্ধন সনদ, আপনার হারানো জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি (যদি থাকে, না থাকলে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার জেনে নেওয়ার চেষ্টা করবেন) নিয়ে সশরীরে উপস্থিত হতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করার উপায়

BDRIS থেকে জন্ম সনদ যাচাই করতে হলে ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ প্রয়োজন হয়। সুতরাং, আপনাকে প্রথমে নিবন্ধন নাম্বার বের করতে হবে।

হারানো জন্ম নিবন্ধনের নাম্বার বের করার জন্য বেশ কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে। নীচে পদ্ধতিগুলো তুলে ধরা হলো:

1. ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করার উপায়

১. ওয়েবসাইটে প্রবেশ: প্রথমেই জাতীয় পরিচয় পত্রের ওয়েবসাইটে  প্রবেশ করুন

২. রেজিস্ট্রেশন: একাউন্ট থাকলে লগইন করুন। না থাকলে এখানে রেজিস্ট্রেশন করতে ‘রেজিস্টার করুন’ অপশনে ক্লিক করুন।

৩. তথ্য প্রদান: এনআইডি নাম্বার ও জন্ম তারিখ সঠিকভাবে লিখে ‘সাবমিট’ করুন।

৪. ঠিকানা প্রদান: আপনার স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা লিখুন।

৫. OTP: এবার আপনাকে একটি OTP (One Time Password) পাঠানোর জন্য ফোন নাম্বার দেখাবে। সেখানে দেখানো ফোন নাম্বার যদি আপনার কাছে থাকে তবে “বার্তা পাঠান” বাটনে ক্লিক করুন। অন্যথায় ‘মোবাইল নাম্বার পরিবর্তন; বাটনে ক্লিক করে OTP পাওয়ার জন্য ফোন নাম্বার পরিবর্তন করে দিন। তারপর OTP টি মোবাইলে আসার পর বসিয়ে দিন।

৬. NID Wallet অ্যাপ ইনস্টল: পূর্বেই যদি আপনার একাউন্ট থাকে তবে এখানে “বহাল” লেখা আসবে, সেখানে ক্লিক করুন। এবার প্রক্রিয়া শেষ করার জন্য NID Wallet অ্যাপসে গিয়ে ফেস স্ক্যান করতে বলা হচ্ছে। তাই ব্রাউজারটি মিনিমাইজ করে গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে NID Wallet অ্যাপ ইনস্টল করুন। তারপর আবার সেই ব্রাউজারে গিয়ে “Tap To Open NID Wallet” বাটনে ক্লিক করলে ক্যামেরা ওপেন হয়ে যাবে। তারপর ক্যামেরার সামনে ফেসটি ডানে বামে নাড়াবেন। তাহলেই ফেস স্ক্যান হয়ে যাবে। এবং “OK” লেখা ভেসে উঠবে।

৭. ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড সেট: তারপর আপনার ছবি সেখানে দেখতে পাবেন। নীচের দিকে “এগিয়ে যান” বাটনে ক্লিক করলে পাসওয়ার্ড সেট করার অপশন পাবেন। সেখান থেকে পাসওয়ার্ড সেট করে দিন। সাথে ইউজার নেমও সেট করুন। সেখানে ক্লিক করলেই আপনার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে যাবে।

৮. লগ ইন: আর যদি পূর্বেই আপনার একাউন্ট থেকে থাকে তবে ওয়েবসাইটে প্রবেশের পর নীচের দিকে “লগ ইন” অপশন পাবেন। সেখানে ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করুন।

৯. ড্যাশবোর্ড: এবার আপনি এনআইডি এর ড্যাশবোর্ডে প্রবেশ করে ফেলেছেন। সেখানে আপনার ছবির একটু নীচের দিকে “বিস্তারিত প্রোফাইল” অপশনে ক্লিক করুন।

Related:  ই পাসপোর্ট করার নিয়ম ২০২২

১০. জন্ম নিবন্ধন নাম্বার: এবার আপনার প্রোফাইলে থাকা সমস্ত তথ্য দেখতে পারবেন। নীচের দিকে আপনার জন্ম নিবন্ধন নাম্বারটি খুঁজে পাবেন।

জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করার উপায়

২. পাসপোর্ট দিয়ে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করার উপায়

আপনার যদি ডিজিটাল পাসপোর্ট থাকে তবে, পাসপোর্ট দিয়ে জন্ম নিবন্ধন চেক করতে পারবেন খুবই সহজে। শুধু নীচের ধাপগুলো অনুসরন করুন।

১) ওয়েবসাইটে প্রবেশ: জন্ম নিবন্ধন যাচাইয়ের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন

২) পাসপোর্ট নাম্বার প্রদান: পাসপোর্টের মধ্যে থাকা ১৭ ডিজিটের ব্যাক্তিগত নং / Personal No (পুরাতন পাসপোর্টে নাও থাকতে পারে) এবং জন্ম তারিখ লিখে সার্চ করুন। ব্যাক্তিগত নং খুঁজে পাবেন নীচের ছবির চিহ্নিত স্থানে।

জন্ম নিবন্ধন নাম্বার জানার উপায়

এবার আপনি জন্ম নিবন্ধনের সকল তথ্য দেখতে পারবেন। জন্ম নিবন্ধন নাম্বারতো বের করা গেলো। এখন প্রয়োজন অনলাইন যাচাই কপি এবং হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড। নীচে নিয়মগুলো তুলে ধরা হলো:

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি ডাউনলোড

সাময়িক কাজ চালানোর জন্য হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদের অনলাইন কপি ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন। কারণ, যেকোনো প্রয়োজনে দরকার হয় শুধু জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ। তাই অনলাইন কপি দিয়েই কাজ চালাতে পারবেন।

যদি সরাসরি কপি জমা দিতে হয় সেক্ষেত্রেও প্রতিলিপিটি না পাওয়া পর্যন্ত এই অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি ব্যবহার করতে পারবেন।

ইতোপূর্বে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করার নিয়ম বলা হয়েছে। সে অনুযায়ী নাম্বার বের করার পর ৩টি সহজ ধাপ অনুসরন করেই অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি ডাউনলোড করা যায়।

হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড করার নিয়ম:

১. BDRIS ওয়েবসাইট ভিজিট: অনলাইন আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ আছে কি না তা যাচাই করতে প্রথমে জন্ম সনদ ভেরিফিকেশন পেজ ভিজিট করুন।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই

২. নিবন্ধন সার্চ: জন্ম নিবন্ধন নম্বর, তারিখ ও পেজের নীচের দিকের অংকটির উত্তর লিখে ‘সার্চ’ বাটনে ক্লিক করুন। আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ অনলাইন ভার্সন হয়ে থাকলে সাথে সাথেই আপনার জন্ম নিবন্ধন নাম্বার, জন্ম তারিখ, নাম, পিতা–মাতার নাম সহ সব তথ্য দেখতে পারবেন নীচের ছবিটির মতো।

৩. জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি প্রিন্ট: এখন আপনি Ctrl + P ক্লিক করে (কম্পিউটারে) এই পেইজটিকে সরাসরি প্রিন্ট করতে পারবেন অথবা পরবর্তীতে ব্যবহারের জন্য সেভ করে রাখতে পারেন pdf ফরম্যাটে। এক্ষেতে এই ছবিটির মতো প্রিন্ট হয়ে যাবে যাচাই কপিটি।

ধাপগুলো সঠিক ভাবে অনুসরন করার মাধ্যমেই সফল ভাবে জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি ডাউনলোড করা যাবে। এটি বিভিন্ন প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য সংরক্ষন করে রাখতে পারেন। তাছাড়া, এটি নিয়ে নিবন্ধক কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। এবার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। অর্থাৎ, জন্ম সনদ পুনঃমুদ্রনের জন্য আবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে চলুন জেনে আসি

হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন ফিরে পাওয়ার উপায়

জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড করার অধিকার ব্যক্তি পর্যায়ে নেই। এটি শুধু নিবন্ধকের কার্যালয় থেকেই করা হয়। তাই আপনাকে নিবন্ধক কার্যালয়ে গিয়ে আবেদন করতে হবে। তারপর সংশ্লিষ্ট কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে হবে।

উপরের নিয়ম অনুযায়ী জন্ম নিবন্ধনের অনলাইন যাচাই কপি প্রিন্ট করে নিবন্ধক কার্যালয়ে নিয়ে আসলে সহজেই পুনঃমুদ্রণের জন্য আবেদন করা যায়। তবে এমনও হতে পারে হারানো নিবন্ধনের কোনো ফটোকপি আপনার কাছে নেই। ফলে জন্ম নিবন্ধন নাম্বারও পাচ্ছেন না। এবার তাহলে কি করবেন? এরও সমাধান রয়েছে। চলুন সমাধান প্রক্রিয়া জেনে নেই।

Related:  অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন

১. জন্ম নিবন্ধন নাম্বার প্রদান

হারিয়ে যাওয়া জন্ম সনদের ফটোকপি/ নাম্বার দায়িত্বরত কর্মকর্তার নিকট জমা দিতে হবে। অথবা অনলাইন যাচাই কপি জমা দিতে হবে। তাহলে সহজেই কাজ সম্পন্ন হয়ে যাবে। যদি আপনার এনআইডি বা পাসপোর্ট না থাকে অথবা জন্ম নিবন্ধন নাম্বার খুঁজে বের করতে অপারগ হন তাহলে আপনাকে সরাসরি নিবন্ধকের কার্যালয় থেকেই যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করতে হবে। এজন্য যা করতে হবে:

i) ব্যাক্তিগত তথ্য প্রদান: প্রত্যেক নিবন্ধক কার্যালয়ের জন্ম নিবন্ধন ডাটাবেইজে সকল তথ্য সংরক্ষিত থাকে। তাই তাদের কাছ থেকে আপনার নাম ও পিতা-মাতার নাম দিয়ে সার্চ করে আপনার নিবন্ধনের নাম্বার ও অন্যান্য তথ্য খুঁজে পাওয়া যাবে।

ii) পরিবারের অন্য কারো জন্ম নিবন্ধন প্রদান: অনলাইন জন্ম নিবন্ধনগুলোতে একই পরিবারের নিবন্ধন নাম্বারগুলোর মধ্যে একটি যোগসূত্র থাকে। তাই আপনার বাবা-মা অথবা পরিবারের কারো জন্ম নিবন্ধন সাথে নিয়ে গেলে কাজটি সহজে হয়ে যাবে। তবে সেই নিবন্ধনটিও একই নিবন্ধন অফিস থেকেই নিবন্ধন করা থাকতে হবে, নাহলে হবে না।

২. জন্ম নিবন্ধন পুনঃ মুদ্রণ সরকারি ফি প্রদান

জন্ম নিবন্ধন পুনঃ মুদ্রণের জন্য সরকার নির্ধারিত ফি (সর্বোচ্চ ২০০ টাকা) আপনাকে জমা দিতে হবে।

এবার অপেক্ষার পালা। নির্ধারিত সময়ের পর নিবন্ধনটি প্রস্তুত হয়ে গেলে আপনার মোবাইলে মেসেজ দিয়ে জানানো হবে। তখন সংশ্লিষ্ট কার্যালয় থেকে আপনার নিবন্ধনটি নিয়ে আসতে পারবেন।

জন্ম সনদ হারিয়ে গেলে প্রতিলিপি পাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত করণীয়

সনদটি হারিয়ে গেলে প্রতিলিপি পাওয়ার আগ পর্যন্ত কাজ চালানোর জন্য অনলাইন জন্ম নিবন্ধন কপি ব্যবহার করতে পারবেন। এটি হলো জন্ম নিবন্ধন ডাটাবেজ থেকে যাচাইকৃত কপি। তাহলে এখন জানতে হবে কিভাবে অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই করবেন, তাই না?

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় বিষয়ে পরিশেষ

একনজরে জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয়:

  • জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ফটোকপি খুঁজে বের করুন
  • ফটোকপি না থাকলে অনলাইন থেকে জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বের করুন
  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি প্রিন্ট করুন (ফটোকপি না থাকলে)
  • নিকটস্থ ইউনিয়ন পরিষদ অথবা পৌরসভায় যেয়ে জন্ম নিবন্ধন পুন:মুদ্রণের জন্য আবেদন করুন এবং ফি জমা দিন
  • নতুন জন্ম নিবন্ধন প্রতিলিপি সংগ্রহ করুন।

বর্তমানে জন্ম নিবন্ধন সনদের সাথে সরকারি প্রায় সকল ডকুমেন্টই সংযুক্ত তাই, সনদটি খুবই গুরুত্বপূর্ন। সতর্কতার সহিত সংরক্ষণ করার পরও এটি হারিয়ে যেতেই পারে।

তবে, আর্টিকেলে উল্লেখ করা জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি, হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদের অনলাইন কপি ডাউনলোড এবং জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার নিয়মগুলো ধাপে ধাপে অনুসরন করলেই পুণরায় আপনার হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধনের প্রতিলিপি হাতে পেয়ে যাবেন।

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় এবং জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ বিষয়ে অথবা এ সম্পর্কিত কোনো প্রশ্ন থাকলে আমাদের কমেন্ট করে জানিয়ে দিন।

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।