ছবি এডিট করার সফটওয়্যার : ছবি আমাদের মনের কথা বলে। প্রতিটি ছবিই কোনো না কোনো এক সময় রুপকথা হয়ে ভেসে উঠে আমাদের সামনে। কয়েক বছর পর আজকের তোলা সেই ছবি স্মৃতি হিসেবে সময়ের ক্রান্তিলগ্নে বিরাজমান হবে আমাদের সামনে।

তাই ছবি তুলতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। ভ্রমণ কিংবা যেকোনো ধরণের অনুষ্ঠানে ছবি তোলা বর্তমান সমাজের তরুণ প্রজন্মের একটি নিত্যদিনের অভ্যাস। কিন্তু শুধু কি ছবি তুললে হবে! সেই ছবিকে আকর্ষনীয় করে তুলতে হলে ছবি এডিটিং সফটওয়্যার এর বিকল্প নেই।

মানুষ এখন অনেক আধুনিক হয়েছে। একসময় ছবি তোলার কাজে শুধুমাত্র ক্যামেরা ব্যবহৃত হতো। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় এখন ছবি তোলার কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে মোবাইল ফোন।  

একসময় ক্যামেরায় তোলা ছবিকে শুধুমাত্র কম্পিউটারের মাধ্যমে ফটো এডিট করা সম্ভব হতো। ছবি এডিট করে আয় করা যদিও এখনো সম্ভব, কিন্তু প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সাথে এখন আপনি আপনার পছন্দের ছবিটি ঘরে বসেই মোবাইলের মাধ্যমে তুলে সেই ছবিকে একই সাথে খুব সহজেই মোহনীয় এবং আকর্ষণীয় করে এডিট করতে পারবেন।

৫টি সেরা মোবাইলে ছবি এডিট করার সফটওয়্যার

এমন অনেক মোবাইল ফটো এডিটর অ্যাপস রয়েছে যেসব সফটওয়ারে ফটো এডিট করলে জীবন্ত ছবি মনে হবে। তেমনি কিছু জনপ্রিয় ছবি এডিটিং সফটওয়্যার নিয়ে আমি আজ আলোচনা করব আপনাদের সাথে। আশা করি সাথেই থাকবেন।

SNEPSEED

বর্তমানে আমাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে ছবি এডিট করার যত apps রয়েছে, তার মাঝে সবার উপরে যার নাম আসে তা হলো SNEPSEED.

ফটো ইডিটিং এপস snapseed

জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান গুগলের তৈরী অসাধারণ একটি মোবাইল ছবি এডিটিং সফটওয়্যার এই SNAPESEED। 

মোবাইল ছবি এডিটর SNAPSEED ইউজারদের নিকট বেশি জনপ্রিয় তার অসাধারণ সব ফিল্টারের কারণে। গুগল প্লে স্টোরে একশত প্লাস মিলিয়ন বার ডাউনলোড করা হয়েছে এই ফটো এডিট করার অ্যাপসটি। 

যেকোনো ছবিকে প্রাণবন্ত ও আকর্ষণীয় করে তুলতে SNAPESEED এর রয়েছে ২৯ টির বেশি ফিল্টার,  যা ছবির ছবির মাধুর্যতা বাড়িয়ে দেয় অনেকাংশে।

মোবাইলে ছবি এডিট করার সেরা এই app টি অনেক উইজার ফ্রেন্ডলি হবার কারণে যেকোনো বয়সের মানুষ খুব সহজে ব্যবহার করতে পারবেন।

SNAPESEED এ বিদ্যমান রয়েছে ব্রাশ, ভিগমিটি, গ্ল্যামার গ্লো ক্রপিং, ফ্লিপিং এর মতো আকর্ষণীয় টুলস, যা ব্যবহারে আপনি খুব সুন্দরভাবে ছবিকে নতুনত্ব প্রদান করতে পারবেন, আপনার ছবি হয়ে উঠবে আগের তুলনায় অনেক বেশি জীবস্ত। এই এপটির মাধ্যমে

জনপ্রিয় ফটো এডিটিং সফটওয়ারটি গুগল প্লেস্টাের থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করা যাবে। এটি সম্পূর্ণ একটি এড ফ্রী  সফটওয়্যার, যার কারণে আপনার ফটো এডিটিং কাজের সময় কোনো ধরনের অহেতুক বিজ্ঞাপনের বিড়ম্বনায় পড়তে হবে না। 

SNAPSEED এর স্পেশাল ফিচার সমূহ হলো:

  • একটি ছবি এডিট করে অন্যান্য ছবিগুলোও একইভাবে এডিট করতে চাইলে ইনফরমেশন সেভ রেখে পরবর্তী ছবিতে অ্যাপ্লাই করতে পারবেন।
  • ২৯টি টুলস এবং ফিল্টার: Healing, Brush, Structure, HDR, প্রভৃতি
  • ছবির নির্দিষ্ট অংশে যদি ইফেক্ট প্রদান করতে চান সেক্ষেত্রে এই এপ্লিকেশনটির রয়েছে সিলেক্টিভ ব্রাশ মোড। 
  • ডার্ক থিম মোড সমর্থিত এপ্লিকেশন।
  • টেক্সট এড করা যাবে, প্লেইন টেক্সট এবং স্টাইলিশ টেক্সট
  • কার্ভস: ফটোশপের মতো কার্ভ দিয়ে ব্রাইটনেস এবং কালার এডজাস্টমেন্ট
  • গ্লামার গ্লো এড করার সুবিধা

Photoshop Express

আরেকটি তুমুল জনপ্রিয় ছবি এডিট করার সফটওয়্যার হলো Photoshop Express. সফটওয়ার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এডোবি তৈরী করেছে অসাধারণ এই ছবি এডিটিং এপ্লিকেশনটি।

ফটো এডিটিং সফটওয়্যার

ফটো এডিট করার app টি গুগল প্লে স্টোর থেকে এই পর্যন্ত ১০০ প্লাস মিলিয়নবার ডাউনলোড করা হয়েছে।

সফটওয়্যারটিতে যেসব সুবিধাগুলো বিদ্যমান রয়েছে তার মাঝে উল্লেখযোগ্য হলো ক্লিপিং, রোটেটিং, ফ্লিপিং এর মতো প্রয়োজনীয় টুলসসমূহ।

এই সফটওয়্যাটি বেশ সহজ, সুন্দর, উইজার ফ্রেন্ডলি। তাছাড়া, ছবি এডিট এর সময় আপনাকে কোনো ধরণের বিরক্তিকর বিজ্ঞাপনের সম্মুখীন হতে হবে না। গুগল প্লেস্টোর থেকে ফ্রিতে ডাউনলোড করা যাবে এই ফটো ইডিটিং অ্যাপসটি।  

ফটোশপ এক্সপ্রেস  ছবি ইডিটর অ্যাপটির কিছু স্পেশাল ফিচার:

  • ওয়ান টাচ ফিল্টারিং।
  • আশি প্লাস এর অধিক অসাধারণ সব ফিল্টার।
  • অটো ফিক্সিং।
  • ছবি ব্যাকগ্রাউন্ড ব্লার করা যায়।
  • ছবি একসাথে করার সফটওয়্যার অর্থাৎ কোলাজ করা যাবে।
  • শক্তিশালী ফাইটো রেন্ডারিং স্ক্রিন যা যেকোনো ছবিকে সহজে দাগহীন করে তুলতে সক্ষম।

Picsart studio

সেরা ছবি এডিট করার সফটওয়্যার তালিকায় তিন নম্বরে অবস্থান করছে ছবি এডিট করার pics art studio app. যারা এমন ফটো এডিটর খুঁজিছেন যা দিয়ে ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করা যায়, তবে এই ছবি ইডিটিং ‍app টি আপনার জন্য

ছবি এডিট করার app

একটি ছবিকে জীবন্ত এবং প্রাণবন্ত করে তুলতে যা যা ফিল্টার প্রয়োজন তার সমস্ত কিছুই বিদ্যমান রয়েছে এই এপ্লিকেশনটিতে। 

প্রায় তিন হাজারের বেশ টুলস বিদ্যমান রয়েছে এই মোবাইল ফটো এডিটিং টুলসটিতে। গুগল প্লে স্টোর থেকে এখন পর্যন্ত এর ডাউনলোড সংখ্যা ১বিলিয়নেরও বেশি। শুধু ছবি এডিট করার সফটওয়্যার হিসেবে নয়, ভিডিও ইডিটিং অ্যাপ হিসেবেও Picsart studio সমান জনপ্রিয়।

এর  অত্যাধুনিক সব ফিল্টার আপনার ছবিকে করে তুলতে নতুনত্ব। তবে এই এপ্লিকেশনটির ফ্রি ভার্সনে আপনাকে বিজ্ঞাপনের সম্মুখীন হতে হবে। 

Picsart studio সফটওয়্যারটির জনপ্রিয় কিছু ফিচার:

  • টাচ ইফেক্ট
  • ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভার
  • অবজেক্ট রিমুভার
  • ২০০+ টেক্সট ফন্ট
  • ক্রপ, কোলাজ, ড্র, স্টিকার 
  • বিল্ট ইন ক্যামেরা ইফেক্ট 
  • Blur photo backgrounds with a smart selection tool
  • Try photo grid, scrapbook, and frames for photos
  • Choose from a bunch of layout designs
  • Go viral. Create funny memes with our meme generator & share them with friends.
  • Get a stunning makeover with Beautify tools: হেয়ার কালার পবির্তন, মেকআপ স্টিকার, ইত্যাদি
  • আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্স সাপোর্ট 
  • ব্রাশ মোড 
  • ড্রইং মোড এই এপ্লিকেশন

you cam perfect

সহজে ব্যবহারযোগ্য একটি জনপ্রিয় ফটো এডিট করার সফটওয়্যার হলো yo cam perfect. বেস্ট সেলফি এডিটর হিসেবে you cam perfect সফটওয়্যারটির সুপরিচিতি রয়েছে

ফটো এডিটর

বেশ আলোচিত এই ফটো এডিটিং অ্যাপটি এখন পর্যন্ত গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করা হয়েছে একশত মিলিয়নেরও অধিক সংখ্যকবার। আপনি আপনার ছবিতে স্কিনের মধ্যে উইনিক টাচ দিতে পারবেন এই এপটির মাধ্যমে। 

একটি ছবিকে প্রাণবন্ত ও জীবন্ত করে তুলতে যে ধরণের টুলস প্রয়োজন হবে তার সব টুলস বিদ্যমান রয়েছে এই Photo Editing Appটিতে। 

সেলফি প্রেমিদের প্রথম পছন্দ জনপ্রিয়  এই you cam perfect ফটো এডিটর। 

you cam perfect এর জনপ্রিয় কিছু ফিচার:

  • গ্রুপ সেলফি তোলার ক্ষেত্রে সব মার্টিপারপাস ফিকশন। 
  • কোন ধরনের ফটো  থেকে অবাঞ্চিত  দাগ মুক্ত করতে এতে রয়েছে কাটআউট। 
  • রিমুভার টুলস। 
  • ভিডিও সেলফি টুলস 
  • ইনস্ট্যান্ট এনহেন্সমেন্ট সমর্থিত

airbrash

ছবি  এডিট করার ক্ষেত্রে airbrash অন্যতম জনপ্রিয় মোবাইল ফটো ইডিটর অ্যাপ। সাধারণ সব ফিলটার এবং ইউজফুল টুলস সমর্থিত এই অ্যাপটি গুগল প্লে স্টোর থেকে এখন পর্যন্ত ১০ মিলিয়ন প্লাস সংখ্যক ডাউনলোড করা হয়েছে। 

photo editor app

airbrash এর জনপ্রিয় কিছু ফিচার:

  • ব্লেমিস রিমুভার, পিম্পল রিমুভার
  • লাইভ ইফেক্ট
  • বিল্ট ইন ক্যামেরা ইফেক্ট
  • ন্যাচারাল রেডিয়েন্স ফিল্টার সম্বলিত
  • চোখ উজ্জ্বল ও দাঁত চকচকে করার সুবিধা

শেষ কথা

প্রতিনিয়ত এই অ্যাপগুলো আপডেট করা হয়, তাই সময়ের সাথে সাথে এইসব ছবি এডিট করার app গুলোতে আরও নতুন নতুন ফিচার যুক্ত হতে থাকে ।

উপরে উল্লেখ করা সেরা ৫টি ছবি ইডিট করার সফটওয়্যার থেকে আপনার কোনটি পছন্দ হলো কিংবা এরচেয়ে ভালো কোনো ছবি এডিটিং সফটওয়্যার সম্পর্কে জানা থাকলে কমেন্ট করে শেয়ার করতে ভুলবেন না।


0 Comments

মন্তব্য করুন

Avatar placeholder

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!