সকালে হাঁটার ১০টি উপকারিতা

হাঁটার উপকারিতা

বলা হয়ে থাকে যে, হাঁটা পৃথিবীর সবচেয়ে সহজ ব্যায়ামগুলোর একটি। যেকোনো বয়সের মানুষের শারীরিক ব্যায়াম এর প্রয়োজন হলে ডাক্তারগণ প্রথমেই হাঁটার পরামর্শ দেন। হাঁটার উপকারিতা সম্পর্কে জানলে আপনিও বুঝতে পারবেন কেন নিয়মিত হাঁটতে বলা হয়। তাই, চলুন সময় নষ্ট না করে নিয়মিত সকালে হাঁটার বিভিন্ন উপকারিতাগুলো জেনে নেওয়া যাক।

১। ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাস করে

বর্তমান সময়ে ডায়াবেটিস হচ্ছে অন্যতম প্রাধান্যপূর্ণ বা কর্তৃত্বকর একটি রোগ। কিন্তু আপনি চাইলেই এই বিপাকীয় বিশৃঙ্খল রোগটি দূরে ঠেলতে পারবেন।

গবেষণায় পাওয়া গেছে, একটি ৩০ মিনিটের হাটা ব্লড সুগার নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ইনসুলিন পরিচালনা করতে সাহায্য করে। অর্থ্যাৎ, ব্লড সুগার লেভেল উন্নতির সাথে আপনি টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারবেন। প্রতিদিনের হাটা আপনার শরীরের ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে যা ইনসুলিনকে সাড়া দিতে সাহায্য করবে।

তাই, যারা ডায়াবেটিসের রোগী তাদের জন্য ডায়াবেটিস হ্রাস করতে সকালে হাটার উপকারীতা অপরিসীম।

২। মাংসপেশি ও জয়েন্টের ব্যথা হ্রাস করে-

সকালে বিছানা ছেড়ে উঠা কিছু মানুষের জন্য খুবই কঠিন হয়ে পড়ে বিশেষ করে যাদের মাংসপেশি রুষ্ট এবং জয়েন্টে ব্যথা রয়েছে। সকালে হাটা জয়েন্টের চারপাশের  মাংসপেশিকে তৈলাক্ত এবং দৃঢ়তা দ্বারা জয়েন্টকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

তাই যাদের মাংসপেশি এবং জয়েন্টে ব্যথা রয়েছে তাদের জন্য সকালে হাঁটা খুবই উপকারী।

৩। মেজাজ উন্নত করে

সকালে হাঁটা মানুষের মানসিক কর্মকাণ্ডের জন্যও উপকারী। যেমন-

সর্বোত্তম ফলাফলের জন্য সপ্তাহে অন্তত নিয়মতি ৫ দিন সকালে ২০ থেকে ৩০ মিনিট হাটাহাটি করার চেষ্টা করুন।

৪। ওজন কমাতে সাহায্য করে

সকালের হাঁটাহাটি আপনার ওজন কমানোর লক্ষ্য বাস্তবায়ন করতে সাহায্য করতে পারে। একটি চটপটে হাঁটা আপনাকে ৩০০ ক্যালরি পোড়াতে সাহায্য করবে। এবং এটা আপনাকে শরীরের চর্বি কমাতে সাহায্য করবে।

Related:  ৬ টি যোগাসন পদ্ধতি | যোগ ব্যায়াম করার পদ্ধতি

হাটা স্বভাবতই শারীরিক কর্মকাণ্ডের অন্যতম একটি সহজ কাঠামো এবং আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করবে

একটি হেলথি ডায়েট এবং নিয়মতি সকালে হাটাহাটি- আপনার ওজন কমাতে একটি বৃহৎ পন্থা হিসেবে কাজ করবে।

৫। ভালো ঘুম হতে সাহায্য করে

সকালে হাঁটা, আপনার মনকে শান্ত রাখতে এবং শরীরে অধিক শক্তি সঞ্চার করতে সাহায্য করবে। দিনের বেলা এটি আপনাকে সক্রিয় থাকতে সাহায্য করবে এবং তার জন্য রাতের বেলা আপনি একটি ভালো ঘুম উপভোগ করতে পারবেন।

৬। ফুসফুসের ধারকত্ব বৃদ্ধি করে

আপনার হাটার স্পিডের উপর নির্ভর করে সকালে হাটা আপনার ফুসফুসকে অধিক অক্সিজেন সরবরাহ করতে  সাহায্য করবে ।

আপনি যখন সকাল সকাল একটি চটপটে হাটা দেন তখন আপনার মাংসপেশি এবং টিস্যুর প্রয়োজনীয় উৎসেচক প্রতিক্রিয়া বহন করতে উচ্চ লেভেলের অক্সিজেন দরকার হয়। এই প্রক্রিয়ায় আপনার ফুসফুসের ধারকত্ব বৃদ্ধি করে।

এছাড়াও, এটি আপনার শরীরের সকল ইন্দ্রিয়ে অক্সিজেন সরবরাহ উন্নতি করতে সাহায্য করবে।

৭। মস্তিষ্ক ক্রিয়াকলাপ বা ফাংশনের উন্নতি করে

নিয়মিত হাটা রক্ত চলাচল এবং অক্সিজন প্রবাহ এর উন্নতি করে এবং চাপ কমাতে বা হ্রাস করতেও সাহায্য করে।

অক্সিজেন এবং রক্তের এই উন্নত সরবরাহ আপনার মস্তিষ্কের মাত্রা বৃদ্ধি করে যা মস্তিষ্ক ক্রিয়াকলাপ বা ফাংশনের উন্নতি করতে সাহায্য করে। এবং এটি সম্ভাব্য মানসিক সমস্যা যেমন, স্মৃতি হীনতাপ্রাপ্তি, বুদ্ধিবৈকল্য বা চিত্তভ্রংশ ইত্যাদি প্রতিরোধে অবিশ্বাস্য উপকারী।

৮। হৃদপিন্ডের জন্য উপকারী এবং মজবুত করে

নিম্ন রক্তচাপ, উন্নত রক্ত চলাচল, হৃদরোগ ঝুঁকির প্রতিহত ইত্যাদি দিনটি সকালের হাঁটার মধ্য দিয়ে শুরু করলে আপনার হৃদপিন্ডকে স্বাস্থ্যসম্মত রাখার পাশাপাশি উচ্চ রক্ত চাপ প্রতিরোধেও সক্ষম হবেন।

গবেষণায় পাওয়া গেছে, যারা তাদের দৈনন্দিন রুটিনের কিছু সময় হাঁটা বিশেষ করে সকালে হাটার জন্য রেখে দেয় তাদের হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি অল্প থাকে।

Related:  ক্যান্সারের লক্ষণ : প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা পদ্ধতি

পাশাপাশি একটি হেলথি কোলেস্টেরল লেভেল নিয়ন্ত্রণে থাকে। অনুকূল স্বাস্থ্য এবং কোষ মেমব্রেন তৈরি বজায় রাখার জন্য শরীরের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে কোলেস্টেরল দরকার হয়।

৯। স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করে-

নিয়মিত হাটা আপনার হৃৎপিণ্ডকে সুস্থ্য ও শক্তিশালী রাখতে সাহায্য করে।

“University of South Carolina” এর একটি গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে- “সপ্তাহে ৫ দিন নিয়মিত এক ঘণ্টার জন্য একটি চটপটে হাটা স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।“

তাই যাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি আছে তারা নিয়মিত হাটার চেষ্টা করবেন।

১০। মানসিক নির্মলতা বৃদ্ধি করে

সকালের হাঁটা আপনার মানসিক নির্মলতা এবং ক্ষমতা উন্নতি করে, যা আপনার দৈনন্দিন কাজে ফোকাস রাখতে সাহায্য করবে।

হাঁটা আপনার মানসিক নির্মলতা উন্নতির মাধ্যমে আপনাকে একজন ক্রিয়েটিভ বা সৃষ্টিশীল ব্যক্তিও তৈরি করবে। দৈনন্দিন হাঁটা আপনাকে একজন প্রভ্লেম সল্ভার হতেও সাহায্য করবে।

আপনি যখন সকালে ঘুম থেকে উঠবেন তখন হয়তো হাঁটা, ব্যায়াম আপনার প্রথম টাস্ক হিসেবে রাখবেন না।

যারা হাঁটার উপকারিতা ও সুফল ইতোমধ্যে পেয়েছেন তারা নিশ্চয়ই এসব জানেন। সকালের কয়েক মিনিটের একটি চটপটে হাঁটা আপনার সারাদিনের ক্লান্তি-অবসাদ দূর করে দিতে পারবে। আপনি আপনার কাজ আরও অধিক এনার্জির সাথে করতে পারবেন।

2 thoughts on “সকালে হাঁটার ১০টি উপকারিতা”

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।