গরমে ত্বকের যত্ন ও ঘরোয়া ফেসপ্যাক

গরমে ত্বকের যত্ন

গরমে ত্বকের যত্ন নিয়ে চিন্তিত? প্রাকৃতিক নিয়মেই প্রতি দু মাস পর পর ঋতুর পরিবর্তন হয়। ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে যেমন প্রকৃতি নতুন রূপ নেয়, তেমনি পরিবর্তন হয় আমাদের ত্বকের যত্নের। গ্রীষ্মকালে গরম বেশি হয়, তাই এই সময় ত্বকের বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয়।

এই প্রচন্ড গরমে আমাদের প্রতিদিন কোনো না কোনো কাজে বাহিরে যেতে হয়। এতে আমাদের ত্বক রুদ্রের সংস্পর্শে আসে। ফলে দেখা যায় ত্বকে সানটান পড়ে যায়। গরমে আমাদের ঘাম বেশি হয়, তাই আমাদের ত্বক তেলতেলে ও কালচে দেখায়।

বেশি গরমের কারণে ত্বকে জ্বালাপোড়া করে ও চুলকায়। এজন্যই গ্রীষ্মকালে ত্বকের জন্য বিশেষ যত্ন নিতে হয়। চলুন জেনে নেই গরমে কিভাবে ঘরে বসে ত্বকের যত্ন নিব।

গরমে ত্বকের যত্ন কিভাবে নিবো?

এখন দেখে নেই এই কর্মব্যস্ত দিনে কীভাবে খুব সহজে আমরা আমাদের ত্বককে রাখতে পারি প্রাণবন্ত, উজ্জ্বল, ও ঝলমলে।

১। সানস্ক্রিন ব্যবহার করা:

প্রতিদিন বাইরে বের হওয়ার ১০-১৫ মিনিট আগে সানস্ক্রিন ক্রিম ব্যবহার করেন। এতে আপনার স্কিন আলট্রা-ভায়োলেট রশ্মির ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা পাবে।

সানস্ক্রিন ব্যবহার করার ক্ষেত্রে লক্ষ্য করুন যেন তা আপনার ত্বকের ধরনের সাথে মিল থাকে । বাড়িতে দীর্ঘক্ষণ কম্পিউটারে কাজ করার আগে এবং রান্নাবান্নার কাজের আগে সানস্ক্রিন ক্রিম ব্যবহার করুন।

২। মুখে পানির ঝাপটা দেওয়া:

গরমের কারণে কমবেশি সকলেরই ঘাম হয় তাই কিছক্ষন পর পর মুখে পানির ঝাপটা দেওয়া ভালো। এতে মুখে ঘাম বসবে না। মুখে ঠান্ডা লাগবে ও সবসময় ফ্রেশ থাকবে।

৩। অতিরিক্ত পানি পান করা:

গরমের কারণে আমাদের যে ঘাম হয় এতে আমাদের শরীর থেকে অনেক পানি বের হয়ে যায়, ফলে আমাদের ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। তাই আমাদের ত্বককে সুস্থ রাখতে অনেক বেশি করে পানি পান করা উচিত।

আর বেশি করে ফলমূল খাওয়া এতে পানির অভাবটা কমে যাবে। সাথে ফলের পুষ্টিগুণ ও ভিটামিন ত্বক সুস্থ রাখবে। আমাদের ত্বকের আদ্রতা বজায় থাকবে এবং দেখতে প্রাণবন্ত লাগবে।

৪। ক্লিনজার পরিবর্তন করা:

ক্লিনজার হলো যেটির মাধ্যমে আমরা আমাদের ত্বককে পরিষ্কার করি। প্রতিদিন আমাদের ত্বকে কত ধরনের ধুলোবালি, ময়লা, জীবাণু লাগে। এজন্য আমাদের ব্যবহার করতে হয় ক্লিনজার।

কিন্তু, শীতকালের চেয়ে গরমকালে ত্বক অনেক বেশি তেলতেলে থাকে। তাই, শীতকালে যে ক্লিনজার বা ফেসওয়াশ ব্যবহার করতেন তা পরিবর্তন করে নতুন ক্লিনজার ব্যবহার করেন। তাতে আপনার স্কিনের অতিরিক্ত তেলতেলে ভাব কমবে।

৫। এন্টি অক্সিডেন্ট জাতীয় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা:

ক্লিনজার এর মত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারে অবলম্বন করতে হবে সতর্কতা। আমাদের ত্বকের ধরন অনুযায়ী নির্বাচন করতে হবে ময়েশ্চারাইজার গ্রীষ্মকালে একটু বেশি অন্টি অক্সিডেন্টযুক্ত জেল বেইসড ময়শ্চরাইজার ব্যবহার করতে হয়।

কারণ, এই সময় ত্বককে হাইড্রেটেড রখতে হয়। আমরা অনেকে গ্রীষ্মকালে মুখে কিছু ব্যবহার করতে চাই না। এটা একদম ঠিক নয় এতে মুখে প্রচন্ড চাপ পড়ে এবং ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। আরো দেখা দিতে পারে ব্ল্যাকহেডস – হোয়াইটহেডস, বয়সের ছাপ, ব্রণ, রেশ ও লোমকূপ ইত্যাদি।

৬। টোনার ব্যবহার করা:

গরমে ত্বকের স্বাভাবিক পরিচর্যা করা প্রয়োজন। টোনার ব্যবহার করলে ত্বকের তেলতেলে ভাব কমে এবং ত্বক পরিষ্কার রাখে। বাজারের উচ্চ অ্যালকোহলযুক্ত টোনার বাদ দিয়ে প্রাকৃতিক টোনার যেমন গোলাপ জল, শসার রস ব্যবহার করতে পারেন।

কারণ, বাজারের টোনার গুলোতে ক্ষতিকারক উপাদান থাকে যা ত্বকের ভারসাম্য নষ্ট করে। টোনার ত্বক কোমল ও মসৃণ রাখতে সাহায্য করে।

৭। কম মেকআপ করা:

এই গরমে আমাদের ত্বকের উপর অনেক চাপ যায়। তাই যতটা কম সম্ভব মেকআপ ব্যবহার করা। আর একান্ত প্রয়োজনে মেকআপ করলে তাড়াতাড়ি দুয়ে ফেলা। এবং পর্যাপ্ত পানি পান করা যাতে ত্বক হাইড্রেটেট থাকে। এবং সামার বেইজড মেকআপ পণ্য ব্যবহার করা।

গরমে ত্বকের পরিপূর্ণ যত্ন নিতে ঘরোয়া ফেসপ্যাক

টমেটো:

রূপচর্চায় টমেটোর কথা আমরা সকলে ভালো করে জানি। টমেটোতে থাকে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লিপোপিন। এটি প্রাকৃতিক ক্লিনজার হিসেবে কাজ করে।

এটি মুখের বাড়তি তেল চুষে নিয়ে ব্ল্যাক হেডস, বয়সের ছাপ ও ব্রণ দূর করতে সহায়তা করে। এটি ভালো টোনার হিসেবেও কাজ করে।

  • একটি মাঝারি আকারের টমেটো নিয়ে অধেক করে নিন।
  • তারপর এটি চটকে রস বের করে নিন।
  • তুলোয় নিয়ে সারা মুখে লাগিয়ে ১০-১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।
  • সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন।

অ্যালোভেরা:

অ্যালোভেরা জেল এই গরমকালে ত্বকের যত্নে সেরা উপাদান। অসংখ্য পুষ্টি উপাদানে ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর অ্যালোভেরা জেল। এটি মুখে লাগিয়ে ১০-১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

এটি ব্রণের দাগ, বয়সের ছাপ ও লোমকুপ সরাতে বেশ কার্যকর। অনেকে এটাকে ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করে যেটা একদম ঠিক নয়।

কলা:

কলায় থাকে ভিটামিন এ, বি, সি ও ভিটামিন ই সহ বিভিন্ন মিনারেলস যেমন পটাশিয়াম, জিংক ও আয়রন। এতে থাকা ভিটামিন এ প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে। এর এন্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রপাটিস ব্রণ ও মুখের বিভিন্ন দাগ দূর করতে সাহায্য করে।

  • একটি কলা চটকে পেস্ট করে নিন।
  • তাতে এক চামচ মধু ও দু ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন।
  • এখন এই মিশ্রণটি মুখে ১০-১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।
  • সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন।

লেবু:

লেবু হচ্ছে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, মিনারেলস এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর বিশাল উৎস। লেবুর রস বের করে নিন। তাতে সামান্য পরিমাণে গোলাপজল ও গ্লিসারিন মিশিয়ে নিন। তারপর ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এটি ব্রণ ও গরমের ফুসকুড়ি কমিয়ে আনতে অব্যর্থ একটি উপাদান।

বেকিং সোডা:

বেকিং সোডা হলো একটি রাসায়নিক উপাদান (NaHCO3)। এটি এক্সফোলিয়েটর হিসেবে কাজ করে।

  • এক চামচ জলে এক চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন।
  • তারপর মুখে লাগিয়ে শুকিয়ে নিন।

বেকিং সোডার অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান থাকায় ত্বকের পিএইচ ব্যালেন্স ঠিক রাখে, ত্বকের তেলতেলে ভাব কাটিয়ে তোলে এবং দীর্ঘদিনের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে।

আশা করি, এখন আর আপনার গরমে ত্বকের যত্ন নিয়ে চিন্তা করতে হবে না এবং গরমেও ত্বক থাকবে উজ্জ্বল ও সুন্দর।

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

seventeen + four =

error: Content is protected !!